Computer

কম্পিউটার (Computer) প্রবন্ধ 

ভূমিকা:

শিল্প বিপ্লবের পর থেকে যন্ত্র বিজ্ঞানের জয়যাত্রা অব্যাহত রয়েছে। আশ্চর্য সব আবিষ্কারের মধ্য দিয়ে মানুষ দুর্বার শক্তির অধিকারী হয়েছে যন্ত্র শক্তিতে। বিজ্ঞানের যুগান্তকারী বিস্ময় ও এক আধুনিকতম আবিষ্কার হলো কম্পিউটার (Computer)। কম্পিউটার-এর কোনো বাংলা প্রতিশব্দ নেই। টেবিলের উপর রাখা যায় এমন যন্ত্রটিকে আগে ইলেকট্রনিক যন্ত্র গণক বলা হত। কিন্তু বর্তমানে এই যন্ত্রটির কাজ শুধু গণনাতে সীমাবদ্ধ নয়। এই যন্ত্রের সাহায্যে কত রকমের কাজ হয়ে থাকে তা বলে শেষ করা যায়না।

কম্পিউটারের (Computer) সংজ্ঞা:

কম্পিউটারহল অনেকগুলো বৈদ্যুতিক যন্ত্রের সমাহার। যা বৈদ্যুতিক প্রবাহের মাধ্যমে যৌক্তিক কার্যাবলী সম্পাদন করে থাকে। কম্পিউটার বৈদ্যুতিক তরঙ্গকে নিজের সংকেতে রূপান্তর করে ব্যবহারকারী কর্তৃক কমান্ডের দ্বারা উদ্ভূত সমস্যার সমাধান করে থাকে।

কম্পিউটার Computer তৈরির ইতিহাসঃ

কে তৈরি করল কম্পিউটার নামক জাদুর বাক্সটা? এ প্রশ্নের উত্তরে সবার আগে যার নাম আসে তিনি হলেন বিখ্যাত ব্রিটিশ গণিতজ্ঞ চালর্স ব্যাবেজ। তিনি হলেন আধুনিক কম্পিউটারের জনক। কিন্তু কম্পিউটার তৈরির ইতিহাস প্রায় আজ থেকে পাঁচ হাজার বছরের পুরোনো! প্রায় পাঁচ হাজার বছর আগে গ্রিক সভ্যতায় “অ্যাবাক্যাস” নামে এক ধরনের গণনা যন্ত্র আবিষ্কৃত হয়েছিল।
পরবর্তীকালে চীনসহ পৃথিবীর অনেক দেশেই ‘অ্যাবাক্যাস” ব্যবহৃত হতো। এর পর ১৬৪২ সালে ১৯ বছর বয়সী ফরাসি বিজ্ঞানী ব্লেইজ প্যাসকেল সর্বপ্রথম যান্ত্রিক ক্যালকুলেটর বা যন্ত্র গণক আবিষ্কার করেন। পরবর্তীতে চার্লস ব্যাবেজ গবেষণা করেছিলেন এই যন্ত্র গণক কে আরও জটিলতর কোনো কাজে লাগানো যায় কিনা। কিন্তু প্রয়োজনীয় যন্ত্র ও মূলধনের অভাবে তিনি কাজ সফল করতে পারেননি। কম্পিউটার বিজ্ঞানের সত্যিকারের সূচনা হয় আল্যান টুরিং এর প্রথমে তাত্ত্বিক ও পরে ব্যবহারিক গবেষণার মধ্য দিয়ে। ১৮৩৩ সালে আধুনিক কম্পিউটারের সূত্রপাত হয়।

কম্পিউটারের বিভিন্ন প্রকারভেদঃ

কম্পিউটারের গঠন ও প্রচলন নীতির ভিত্তি করে একে তিনটি ভাগে ভাগ করা যায়। যথাঃ
১. অ্যানালগ কম্পিউটার
২. ডিজিটাল কম্পিউটার
৩. হাইব্রিড কম্পিউটার

কম্পিউটার (Computer) মগজ ও তার কার্যকারিতা :

কম্পিউটার ঠিক যেন যন্ত্র মস্তিষ্ক। আমাদের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করে তার মাথায় ধরে রাখা স্মৃতি অর্থাৎ তথ্যের প্রয়োগ ঘটিয়ে। তিনটি প্রধান অংশ নিয়ে গঠিত কম্পিউটারের এই মগজ। এই তিনটি অংশ হলোঃ
সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট (সিপিইউ)ঃ সিপিইউকে কম্পিউটারের মগজ বলা হয়। কারণ এই কম্পিউটারের এই অংশ যেকোনো সমস্যা সংক্রান্ত তথ্য নিয়ে কাজ করে।
ইনপুটঃ ইনপুটের কাজ হলো তথ্য অনুযায়ী নির্দেশ গ্রহণ করে। কী-বোর্ড, মাউস, ডিস্ক, স্ক্যানার, কার্ড রিডার, ডিজিটাল ক্যামেরা ইত্যাদি হলো ইনপুট যন্ত্রপাতি।
আউটপুটঃ ইনপুটে পাওয়া নির্দেশকে ফলাফল হিসেবে প্রকাশ করে কম্পিউটারের আউটপুট অংশ। মনিটর, প্রিন্টার, ডিস্ক, স্পিকার, প্রোজেক্টর, হেড ফোন ইত্যাদি কম্পিউটারের আউটপুট যন্ত্রপাতি।
কম্পিউটারে নির্দেশ ও তথ্য প্রদানের জন্য যে নির্দিষ্ট ভাষার প্রয়োগ করা হয়ে থাকে তাকে বলে প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ। আর যে সমস্ত তথ্য নিয়ে কম্পিউটার কাজ করে তাকে বলে ডেটা বা উপাত্ত।
সেই সাথে আধুনিক কম্পিউটারের রয়েছে অত্যন্ত দ্রুত সমস্যা সমাধানের ক্ষমতা, বিপুল পরিমাণ উপাত্তকে সুন্দর করে সাজিয়ে মস্তিষ্কে ধরে রাখার ক্ষমতা ও তথ্য বিশ্লেষণের নির্ভুল ক্ষমতা।

কম্পিউটারের ব্যাবহার:

কম্পিউটার কর্ম জীবনে ব্যাবহারিক ক্ষেত্রে খুলে দিয়েছে একের পর এক নতুন দিগন্ত। অনেক জন মানুষের কাজ একমুহূর্তে নির্ভুল ভাবে করতে পারে কম্পিউটার। দৈনন্দিন জীবনে সবকাজেই রয়েছে কম্পিউটারের ব্যাবহার। ব্যাংকের কাজ নির্ভুল ও তাড়াতাড়ি করে দেয়। স্কুল, কলেজ অফিস আদালত সমস্ত ক্ষেত্রে তথ্য জমার কাজ করে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ক্ষেত্রেও কম্পিউটারের ব্যাবহার উল্লেখযোগ্য। মুদ্রণ শিল্পে এক যুগান্তকারী পরিবর্তন এনে দিয়েছে কম্পিউটার।

বিভিন্ন ক্ষেত্রে কম্পিউটারের ভূমিকাঃ

আমাদের নিত্যদিনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে কম্পিউটার অনেক অবদান রাখছে। কম্পিউটার আমাদের দৈনন্দিন জীবনকে করেছে আরো বেশি সহজ ও দ্রুত।
ক। শিক্ষাক্ষেত্রে কম্পিউটারঃ আধুনিক শিক্ষাপদ্ধতির অনন্য বাহন কম্পিউটার। কম্পিউটারের অনলাইন ক্লাসরুম, ডিজিটাল ক্লাসরুম ব্যবস্থা শিক্ষাক্ষেত্রে এনেছে নতুন এক অধ্যয়। বিজ্ঞান, ভূগোল, ইতিহাস ইত্যাদি বিষয়ে নানারকম চিত্র ও ভিডিও প্রদর্শনির মাধ্যমে ক্লাস নেওয়া হচ্ছে, ফলে ছাত্র ছাত্রীরা নানাভাবে উপকৃত হচ্ছে। পরীক্ষার ফলাফল তৈরি, উচ্চশিক্ষায়, বিভিন্ন গবেষণায় এমনকি শিক্ষার বাহন পুস্তক প্রকাশনাতেও কম্পিউটার অবদান রেখে চলছে প্রতিদিন।
খ। চিকিৎসাক্ষেত্রে কম্পিউটারঃ কম্পিউটার চিকিৎসাক্ষেত্রে অসামান্য অবদান রাখছে। সনাতন চিকিৎসা পদ্ধতিতে আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থায় রূপ দেওয়ার পেছনে রয়েছে কম্পিউটার। এর মাধ্যমে ওষুধ প্রদান, অনলাইন ডাক্তার দেখানে থেকে শুরু করে চিকিৎসাক্ষেত্রে নতুন নতুন গবেষণা হচ্ছে।
গ। যোগাযোগ ক্ষেত্রে কম্পিউটারঃ কম্পিউটারকে আরো প্রাণ দিয়েছে বর্তমান ইন্টারনেট ব্যবস্থা। এর মাধ্যমে ঘরে বসেই আমরা পৃথিবীর অন্যপ্রান্তে থাকা কাছের মানুষের সাথে যেমন কথা বলতে পারছি, তেমনি তাদেরকে দেখতেও পাচ্ছি।

কম্পিউটারের অপব্যবহারঃ

কম্পিউটারের অপব্যবহারের মাধ্যমে সাইবার অপরাধ, হ্যাকিং ইত্যাদি বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে মানুষের ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নিতে পারছে বেশ কিছু অসাধু মানুষ। এছাড়াও একটানা কম্পিউটারের সামনে বসে থাকার ফলে মানুষের পিঠে ব্যাথা, চোখে সমস্যাসহ আরো অন্যান্য শারীরিক ও মানসিক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে।
ছাত্র ছাত্রীদের জন্য কম্পিউটার যেমন তাদের শিক্ষাগ্রহণের পদ্ধতিকে আরো সহজ করেছে তেমনি কম্পিউটারের নেশা ছাত্রছাত্রীদেরকে তাদের পড়ালেখা থেকে দূরেও ঠেলে দিচ্ছে।

উপসংহার:

কম্পিউটার আশির্বাদ না অভিশাপ এই নিয়ে যে দ্বন্দ তার অবসান হয়তো কোনোদিনও ঘটবেনা। কম্পিউটারের মতো এক অন্যতম প্রযুক্তি বিজ্ঞানকে বাদ দিয়ে আধুনিক সভ্যতা একবারেই অচল। ব্যাবহারের পার্থক্যের কারণে কখনও কখনও ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ালেও সব মিলিয়ে কম্পিউটার আধুনিক জীবনে এক শুভ পরিবর্তন এনেছে তা স্বীকার করতেই হবে।

You may like to read “Article | Grammar Part-1” & “21 February Eassy | একুশে ফেব্রুয়ারী সর্ম্পকে একটি রচনা লিখ

Related Posts

Animals of the Sundarbans  | সূন্দরবনের প্রাণী

Animals of the Sundarbans | সূন্দরবনের প্রাণী

Animals of the Sundarbans  (সূন্দরবনের প্রাণী) ভূমিকাঃ- সুন্দরবন বাংলাদেশের এক অপরূপ প্রাকৃতিক নিদর্শন। চমৎকার সব গাছপালা আর বন্য প্রাণীর সমাবেশ এই সুন্দরবন। বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষে দাঁড়িয়ে থাকা এ বনটি প্রকৃতি প্রেমিদের কাছে একটি গুরূত্বপূর্ণ স্থান। সুন্দরবনের...

read more
21 February Eassy | একুশে ফেব্রুয়ারী সর্ম্পকে একটি রচনা লিখ

21 February Eassy | একুশে ফেব্রুয়ারী সর্ম্পকে একটি রচনা লিখ

একুশে ফেব্রুয়ারী (21 february Eassy) সূচনাঃ- একুশে ফেব্রুয়ারী (21 february) বাঙালি জাতির জীবনে একটি বিশেষ স্মরণীয় দিন। মাতৃভাষা বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে ছাত্রসমাজ এই দিনে আন্দোলন শুরু করে। এ দিনে ঘটে যাওয়া ইতিহাস রক্তে লেখা ইতিহাস। তাই ফেব্রুয়ারীর গান রক্তে...

read more